অ্যান্ড্রয়েড ফোনের ব্যাটারী দীর্ঘস্থায়ী করার দশ উপায়।

আপনার অ্যান্ড্রয়েড ফোনে দ্রুত চার্জ শেষ হয়ে যায়? নিচের পদ্ধতি গুলো আপ্লাই করুন, তাহলে দীর্থক্ষন চার্জ থাকবে ফোনে।

১। কানেক্টিভিটি ফিচার মোবাইলে সবথেকে বেশী চার্জ ব্যবহার করে। দরকার ছাড়া ওয়াই-ফাই, ব্লুটুথ ও জিপি এস অফ করে রাখুন। এতে আপনার মোবাইলের ব্যাটারীর চার্জের ডিউরেশন অনেক বেশী বৃদ্ধি পাবে।

২।ভাইব্রেশন অপশনটি খুবই উপকারী বাইরে জ্যাম বা অনেক আওয়াজের মাঝে মোবাইল রিংটোন শোনা না গেলে ভাইব্রেশন এর মাধ্যমে বোঝা যায়। তবে এই উপকারী অপশনটি রান করতে মোবাইলে ছোট একটি ভাইব্রেশন মোটর ব্যবহার করতে হয় যা ব্যাটারীর অনেক চার্জ শোষন করে। তাই যদে প্রয়োজন না হয় তাহলে ভাইব্রেশন অপশন টি অফ করে রাখতে পারেন ।

৩। ফেসবুক, ওয়াটসাপ, ভাইবার ব্যবহার করা শেষ। এখন আপনি অন্য অ্যাপস ব্যবহার করছেন। কিন্তু ফোনের ব্যকগ্রাউন্ডে অ্যাপসগুলো ঠিকই সক্রীয় হয়ে আছে। এবং তা ব্যাটারীর ভাল পরিমান চার্জ শোষন করে থাকে। এমন অবস্থায় কিছুক্ষন পর পর বা কয়েক ঘন্টার মধ্যে একবার হলেও সকল ইন অ্যাকটিভ আপস গুলো কিল করুন। আগে এই অ্যাপস গুলো কিল করা বেশ ঝামেলা ঝুক্ত ছিল। অ্যানড্রয়েড এর নতুন সংস্করনে তা অনেক সহজ হয়ে গেছে।

৪।অটো সিনক্রোনাইজেশন আপনার মোবাইলের চার্জ এবং মোবাইল ডাটা দূটোই ভাল পরিমানে ব্যবহার করে। তাই সিনক্রোনাইজেশন অপশনটি বন্ধ রাখুন যদি তা খুব বেশি প্রয়োজনীয় না নয়।

৫। ডিসপ্লের ব্রাইটনেস অপটিমাইজ করুন। রাতের বেলা যখন মোটামোটি ব্রাইটনেস এ ক্লিয়ার দেখা যায় তখন ব্রাইটনেস বেশী না বাড়িয়ে অল্প করে দিন। এতে আপনার ব্যাটারী দীর্থায়ুতা বৃদ্ধি পাবে।

৬। অটো লক টাইম কমিয়ে আনুন। যেহেতু আপনার ফোনের স্ক্রীন ব্যাটারীর সবথেকে বড় শত্র তাই যত কম সময় ডিসল্পে অন রাখা যায় তত ভাল। সেটিংস > ডিসপ্লে অপশন এ যান এর পর স্লিপ লেংথ যত কম করা যায় তত ভাল। ১৫ সেকেন্ড খুবই ভাল অপশন।

৭।হ্যা লাইভ ওয়ালপেপার। অনেক চলমান দৃশ্য আলোর রুপান্তর মোবাইল ডিসপ্লেতে দেখতে বেশ ভাল লাগে কিন্তু দৈনন্দিন জীবনে, এসব চিত্তাকর্ষক ওয়াল পেপার অনেক বেশি পাওয়ার খরচ করে। তাই ফোনের চার্জ বাচাতে এসব লাইভ ওয়ালপেপার বন্ধ করে পাওয়ার সাশ্রয়ী ওয়াল পেপার ব্যবহার করুন।

৮। বিশ্বাসঘাতক অ্যাপসগুলো ডিলিট করুন। হ্যা কিছু অ্যাপস আছে যা প্রচুর পরিমানের সিস্টেম রিসোর্স ব্যবহার করে। হয়ত অ্যাপসটির ধরনই এমন ( গেইমস এর ক্ষেত্রে) অথবা ডেভেলপার এর অবহেলার কারনে অ্যাপসটি ক্রুটিপূর্ন হয়ে গেছে। এইরকম অ্যাপস খুজে বের করতে যানঃ সেটিংস > পাওয়ার > ব্যাটারী ইউজ> এখানে দেখতে পারবেন কোন অ্যাপসটি অস্বাভাবিক পরিমান ব্যটারী খরচ করচে।

৯।ব্যাটারী সেভার অন্যতম একটি উপকারী অপশন। সেটিংস এ গিয়ে ব্যাটারী সেভার একটিভেট করুন। এটি আপনার মোবাইলের পারফরমেন্স লো সেটিংস এ নিয়ে আসবে, লোকেশন, ব্যাকগ্রাউন্ড ডাটার মত হাই রিসোর্স কনজিউমিং অপশন গুলো অফ করে দিবে। সাধারন আপনার মোবাইল চার্জ ১০-১৫ পার্সেন্ট এ নেমে এলে ব্যাটারী সেভার ইউজ করতে পারেন।

১০। রুট করার মাধ্যমে ব্যাটারী সেভিং এর অনেক অপশন আনলক করা যায়, যা অন্য অবস্থায় করা সম্ভব হয় না। তবে রুট করতে সময় খুবই সাবধান থাকতে হবে কেননা ভুল হলে ফোন পুরোপুরি নষ্ট হয়ে যেতে পারে।

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s